সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন

সদ্য সংবাদ :
কারোনা আতঙ্কঃ এগিয়ে আসেনি কেউ, মরদেহ কাঁধে নিয়ে শ্মশানে চার মেয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখার দায়ের ৭১জনকে ১৬ হাজার ৯’শ টাকা জরিমানা নেত্রকোনার আটপাড়ায় সামাজিক দূরত্ব মানছে না সাধারণ মানুষ করোনা পরিস্থিতিতে বেতনের টাকায় অসহায়দের পাশে এএসআই মাসুদুর নেত্রকোনায় করোনা ভাইরাসের লক্ষণ নিয়ে এক নারীর মৃত্যু অসহায় শ্রমজীবী মানুষের ত্রাণ বিতরণ করলেন এমপি মোতাহার সাংসদদের পক্ষ থেকে ১৫ হাজার পরিবারে মধ্যে খাদ্য সহায়তা বিতরন করোনার উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তি আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি আলোচিত হত্যা মামলার আসামী বুলবুল মীরকে পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর চা খেলেই করোনার সারে ! অতপর হারবাল চিকিৎসক আটক
বালু ফেলতে না দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা নারীকে মারধর

বালু ফেলতে না দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা নারীকে মারধর

শাহিনুর ইসলাম প্রান্ত, লালমনিরহাট:

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় বালু ফেলতে না দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ ২ জনকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে মাসুদ রানা নামে এক জনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ ২ জনকে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।  বৃহস্পতিবার (১৯ মার্চ) রাতে উপজেলার খোর্দ্দ বিছনদই এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে ওই উপজেলার খোর্দ্দ বিছনদই এলাকার মকবার আলীর ছেলে মাসুদ রানা (৩৩) একই এলাকার আজিজার রহমানের ছেলে সামছুল ইসলাম এর বাড়ীর সামনে সামছুলের জমিতে জোরপুর্বক ট্রাকে করে বালু ফেলছিল। এ সময় সামসুল ইসলামের অন্তঃসত্ত্বা মেয়ে সুলতানা (৩২) ও জামাতা আহসান হাবীব বালু ফেলতে বাঁধা দেয়। এতে পূর্বের জমিজমার জের ধরে পরিকল্পিত ভাবে মাসুদ রানাসহ প্রায় ৭ থেকে ৮ জন এলোপাতারিভাবে অন্তঃসত্ত্বা সুলতানা ও আহসান হাবীবকে মারধর করে। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

এ বিষয়ে অন্তঃসত্ত্বা সুলতানা বলেন, মাসুদ রানা আমাদের জমিতে জোর পূর্বক বালু ফেলছিল এ সময় আমি ও আমার স্বামী তাদের বাঁধা দিলে মাসুদ রানাসহ আরও কয়েকজন আমাদের এলোপাতারিভাবে মারধর শুরু করে। এ ঘটনায় আমার বাবা বাদি হয়ে রাতেই হাতীবান্ধা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মাসুদ রানা এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি সরকারী জমিতে বালু ফেলছিলাম এ সময় হয়তো তাদের জমিতে একটু বালু পরেছিল। কিন্তু তারা যখন এসে বললো তখন আমি বালু সরিয়ে নিতে একটু দেরি হওয়ায় তারাই আমাদের মারধর করেছে।

হাতীবান্ধা থানার ওসি (তদন্ত) নজির হোসেন বলেন, এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ভাল লাগলে শেয়ার করবেন




© All rights reserved © 2017 jonopriya.com
Design & Developed BY jonopriya.com
error: Content is protected !!