সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ন

সদ্য সংবাদ :
কারোনা আতঙ্কঃ এগিয়ে আসেনি কেউ, মরদেহ কাঁধে নিয়ে শ্মশানে চার মেয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখার দায়ের ৭১জনকে ১৬ হাজার ৯’শ টাকা জরিমানা নেত্রকোনার আটপাড়ায় সামাজিক দূরত্ব মানছে না সাধারণ মানুষ করোনা পরিস্থিতিতে বেতনের টাকায় অসহায়দের পাশে এএসআই মাসুদুর নেত্রকোনায় করোনা ভাইরাসের লক্ষণ নিয়ে এক নারীর মৃত্যু অসহায় শ্রমজীবী মানুষের ত্রাণ বিতরণ করলেন এমপি মোতাহার সাংসদদের পক্ষ থেকে ১৫ হাজার পরিবারে মধ্যে খাদ্য সহায়তা বিতরন করোনার উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তি আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি আলোচিত হত্যা মামলার আসামী বুলবুল মীরকে পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর চা খেলেই করোনার সারে ! অতপর হারবাল চিকিৎসক আটক
ক্ষুদ্র ঋণ আদায় কায্যক্রম বন্ধ, দিশেহারা মানুষ

ক্ষুদ্র ঋণ আদায় কায্যক্রম বন্ধ, দিশেহারা মানুষ

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি :

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলায় পরিচালিত এনজিও সমূহের সকল প্রকার ক্ষুদ্র ঋণ আদায় কায্যক্রম আগামী ৩০মে পযর্ন্ত বন্ধ রাখার জন্য পত্র জারি করছে উপজেলা প্রশাসন।

আজ ২৮ মার্চ স্বাক্ষরিত কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সাব্বির আহম্মেদ এ পত্র জারি করেন।

এদিকে, করোনা ভাইরাস আতঙ্কে মানুষ গৃহবন্দী হয়ে পড়ছে। হাট-বাজারে কমে গেছে মানুষের উপস্থিতি। আয়-রোজগার কমে যাওয়ায় ক্রমেই দিনমজুর, শ্রমজীবি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মাঝে বাড়ছে হতাশা। এরপরও আবার কিস্তির জন্য তাড়া করছেন এনজিও কর্মীরা। একদিকে করোনা ভাইরাস আতঙ্ক, আর অন্যদিকে এনজিওর ঋণের কিস্তির টাকার বোঝা মাথায় নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে কাশিয়ানী উপজেলার কয়েক হাজার মানুষ।

পত্রে উল্লেখ করা হয়, সম্প্রতি বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস রোগী শনাক্ত হয়েছে। বর্ণিত ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ ও মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিবেচনায় রেখে জীবনযাত্রায় বিভিন্ন রকমের বিধি নিষেধ অারোপ করা হয়েছে। বিভিন্ন বিধি নিষেধের কারণে জনসাধরনের অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। এমতাবস্থায়, কাশিয়ানী উপজেলায় পরিচালিত এনজিও সমূহের সকল প্রকার ক্ষুদ্র ঋণ আদায় কায্যক্রম আগামী ৩০মে পযর্ন্ত বন্ধ রাখার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হল।

অপর দিকে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, কাশিয়ানী উপজেলায় ব্র্যাক, গ্রামীণ ব্যাংক, আশা, সিএসএস, জাগরণী, আর আর এফ, পল্লী প্রগতি সহায়ক সমিতি, টিএমএসএস, আরডিবি, প্রশিক্ষা, গণ উন্নয়ন প্রচেষ্টা, রিকসহ বেশ কয়েকটি এনজিও ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। করোনা ভাইরাস উপেক্ষা করে কাকডাকা ভোরেই এসব এনজিওর কয়েক শ’ কর্মী বিভিন্ন এলাকায় বাসা-বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কিস্তির টাকা আদায়ের জন্য বেড়িয়ে পড়ছেন। এতে এনজিওকর্মী ও ঋণগ্রহীতা উভয়ের জন্য করোনা ভাইরাস সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকি রয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এ দুঃসময়ে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও দিনমজুরী পরিবারগুলোর উপর এনজিও’র কিস্তির টাকা যেন ‘মরার উপর খাঁড়ার ঘা’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিস্তির টাকা নিয়ে ঋণগ্রহীতাদের সঙ্গে এনজিও কর্মীদের অসৌজন্যমূলক আচরণ ও ঝগড়া-বিবাদের ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হাত-পা ধরেও রেহাই পাচ্ছে ঋণগ্রহীতারা।

এ দুঃসময়ে কর্মহীন মানুষ কোন উপায় না পেয়ে বাধ্য হয়ে অনেকে স্থানীয় সুদে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চড়া সুদে টাকা নিয়ে এনজিওর কিস্তির টাকা পরিশোধ করছেন।

উপজেলার রামদিয়া বাজারের হার্ডওয়্যার ব্যবসায়ী রকিবুল ইসলাম বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে বাজারে লোকজনের উপস্থিতি একেবারেই কম। কেনাবেচা একেবারেই নেই। সংসার চালাতেই হিমশিম খাচ্ছি। অথচ এনজিও’র লোকজন এসে কিস্তির টাকা জন্য চাপ দিচ্ছেন।

ঘোনাপাড়া গ্রামের শিখা বেগম জানান, তার স্বামী একটি ডেকোরেটরের দোকানে কাজ করেন। করোনা ভাইরাসের কারণে মালিক দোকানের কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন। এতে দু’বেলা দু’মুঠো ভাত জোগার করাই কঠিন হয়ে পড়েছে। তবুও এনজিও’র সাপ্তাহিক কিস্তির ৮’শ টাকা অন্যের কাছ থেকে ধার করে তিনি কিস্তি পরিশোধ করেছেন।’

কাশিয়ানী সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: মশিউর রহমান খান বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে ব্যবসা-বাণিজ্যে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। ফলে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা এনজিওর ঋণের টাকা পরিশোধে দিশেহারা হয়ে পড়েছে। তাই এ দুর্যোগকালে এনজিও’র কিস্তি আদায় বন্ধ রাখা উচিত মনে করি। কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সাব্বির আহমেদ বলেন, কাশিয়ানী উপজেলায় পরিচালিত এনজিও সমূহের সকল প্রকার ক্ষুদ্র ঋণ আদায় কায্যক্রম আগামী ৩০মে পযর্ন্ত বন্ধ রাখার জন্য পত্র জারি করা হয়েছে।

ভাল লাগলে শেয়ার করবেন




© All rights reserved © 2017 jonopriya.com
Design & Developed BY jonopriya.com
error: Content is protected !!