রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০, ০৬:৩৪ অপরাহ্ন

আলোচিত মারুফা হত্যা মামলা সিআইডিতে হস্তান্তর

মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৬ মে, ২০২০
  • ১৯০ বার পঠিত
আলোচিত মারুফা হত্যা মামলা সিআইডিতে হস্তান্তর
আলোচিত মারুফা হত্যা মামলা সিআইডিতে হস্তান্তর

নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জ থানার বহুল আলোচিত মারুফা আক্রার (১৪) হত্যা মামলাটি অবশেষে নেত্রকোনা সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মোহনগঞ্জ থানার ইনচার্জ মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান জানান, মঙ্গলবার (২৬ মে) মারুফা মামলাটি তদন্ত করার জন্য সিআইডিকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যে মামলার নথিপত্র সিআইডি  বুঝে নিয়েছে। আজো ময়না তদন্ত রিপোর্ট আসেনি।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ফেইস বুকে দেশ-বিদেশ থেকে সুষ্ঠ বিচারের জন্য হাজার খানেক আইডি থেকে লেখা অব্যাহত রয়েছে।

তাছাড়া বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনসহ নেত্রকোনা জেলার ছাত্র ও যুব সমাজের আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে।

নেত্রকোনা জেলা সদর, মোহনগঞ্জ ও বারহাট্টা সদর ছাড়া ও বিভিন্ন বাজারসহ গ্রামে প্রতিদিনই মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত হচ্ছে।

যুব সমাজ এমপি সাবেক আমলাসহ জনপ্রতিনিধি নিরব কেন মর্মে ফেইসবুকে লেখা অব্যাহত রয়েছে।

শেষ পর্যন্ত একজন সাবেক আমলা সঠিক তথ্য উদঘাটন করে মারুফার বিচার চেয়ে স্যাটাস দিয়েছেন।

মারুফা আক্রার (১৪) বারহাট্টা উপজেলার ৬ নং সিংধা ইউনিয়নের শাহ মাহবুব মের্শেদ কান্চন এর মোহনগঞ্জ দৌলতপুরস্থ বাসায় ঝির কাজ করত।

চরসিংধা গ্রামের মৃত আলী আকবরের মেয়ে মারুফা।

গত ৮ মে বিকালে চেয়ারম্যানের বাসার বড়ই গাছে ফাঁস লাগানো মারুফাকে চেয়ারম্যান তার লোকজন নিয়ে নামিয়ে মোহনগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ডাক্তার নিবিড় পর্যবেক্ষণ  করে মৃত ঘোষণা করেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থানায় জানালে লাশ থানায় নিয়ে যায়।

তখন থানায় উৎসুক জনতা ভিড় জমায় এবং ফেইসবুকে প্রতিবাদের ঝড় উঠে।

তার মা মোছাঃ আকলিমা বেগম ঢাকা থেকে আসার পর ৯ মে লাশ নেত্রকোনা নেয়ার পথে মারুফার ক্ষত ছবি মোবাইলে ধারন করে।

ময়না তদন্ত শেষে লাশ মারুফার নানার বাড়ী কলমাকান্দার চিনাহালা গ্রামে দাফন করা হয়।  এর পর থেকে মেয়ের দেহের ক্ষত ছবি দিয়ে ফেইসবুকে লেখার ঝড় উঠে।

চেয়ারম্যান আপোসের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেন এবং দাপনের জন্য টাকা প্রদানের বিষয়টি আকলিমা আক্রার শিকার করে ভিডিও তে।

১১ মে সন্ধার পূর্বে চেয়ারম্যানকে মোহনগঞ্জ থানা পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে যায়। মায়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে হত্যা মামলা নং ১২ দায়ের হয়।

পরের দিন আসামীকে কোর্টে সোপোর্দ করে। ১৪ মে আদালত চেয়ারম্যানকে জামিন দেয়।  এর পর থেকে যুব সমাজের আন্দোলন বিচারের দাবীতে অব্যাহত থাকে। সবারই দাবী সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে  সঠিক তথ্য উদ্ঘাটন করে বিচারের আওতায় আনা হউক।

শেয়য়ার করুন..

এ জাতীয় আরও সংবাদ

© All rights reserved © 2020 jonopriya.com
কারিগরি সহযোগিতায়-SHAHIN প্রয়োজনে:০১৭১৩৫৭৩৫০২ purbakantho
themesba-lates1749691102